Wednesday, June 23, 2021
Home Kolkata news খাঁ খাঁ করছে হেস্টিংস অফিস, ডাক পেয়ে আসছেন না বিজেপির পরাজিত প্রার্থীরা

খাঁ খাঁ করছে হেস্টিংস অফিস, ডাক পেয়ে আসছেন না বিজেপির পরাজিত প্রার্থীরা


সমস্ত ছকে রাখা পরিকল্পনা ভেঙে চুরমার হয়ে গিয়েছে। যে আস্ফালন নির্বাচনী প্রচারে বিজেপি নেতা–নেত্রী থেকে প্রার্থীরা দেখিয়েছিলেন এখন তা বুমেরাং হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ ২০০ আসন তো দূরের ব্যাপার। ১০০ আসন জিততে পারেনি বিজেপি। ক্ষমতা দখলের স্বপ্ন ফেরি করলেও ৭৭ আসনে আটকে গিয়েছে গেরুয়া শিবির। দুই সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক এবং জগন্নাথ সরকার বিধায়কপদ ছাড়ায় বিধানসভায় বিজেপি-র শক্তি আরও কমে ৭৫। এই পরিস্থিতিতে দলের পরবর্তী কর্মসূচি ঠিক করতে একাধিক বৈঠক ডাকা হলেও তাতে সাড়া দিচ্ছেন না বেশিরভাগ পরাজিত প্রার্থীরা।

বৈঠকে ডাক পেয়েও অনুপস্থিত থাকার ছবি দেখা গিয়েছে শুক্রবার। হেস্টিংসে দলের দফতরে বৈঠকে ডাকা হয়েছিল সব পদাধিকারী ও প্রধান নেতাদের। কিন্তু সেখানে উপস্থিতির হার অত্যন্ত কম। বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির বিপর্যয়ের পর কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের পক্ষ থেকে রাজ্যে দায়িত্বে এসেছেন অন্যতম সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক তরুণ চুঘ। তবে শুক্রবারের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, রাজ্যের সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) অমিতাভ চক্রবর্তী। বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী–সহ অন্যান্যরা।

এই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে ডাক পেয়েও আসেননি জ্যোতির্ময় সিং মাহাতো, লকেট চট্টোপাধ্যায়, রথীন বসু। রাজ্য বিজেপিতে সহ–সভাপতি রয়েছেন ১২ জন। তাঁদের মধ্যে নামমাত্র হাজির ছিলেন শুক্রবারের বৈঠকে। ১০ জন রাজ্য সম্পাদকের অনেকে হেস্টিংস অফিসের ছায়া মাড়াননি। এমনকী রাজ্য কমিটির বাছাই কয়েকজন সদস্যকে বৈঠকে ডাকা হয়েছিল। তাঁদের মধ্যে ছিলেন বিধাননগরে পরাজিত প্রার্থী সব্যসাচী দত্ত। তিনিও আসেননি। গরহাজির ছিলেন ডোমজুড়ে পরাজিত রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্য বিজেপির এক প্রথমসারির নেতার দাবি, ‘‌নির্বাচন পরবর্তী সময়ে এঁদের অনেকেই কোনও বৈঠকেই আসছেন না। অনিয়মিত যোগাযোগ রেখে চলছেন ভারতী ঘোষ। এই পরাজিত নেতা–নেত্রীর এখন হাবভাব রাত গ্যায়ি বাত গ্যায়ি।’‌

যদিও এই অনুপস্থিতির বিষয় নিয়ে দিলীপ ঘোষের সাফাই, ‘‌করোনাভাইরাসের বাড়বাড়ন্তে অনেকে নিজেদের দূরে সরিয়ে রেখেছেন। আবার অনেক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। আবার কোথাও কোথাও সন্ত্রাস হচ্ছে, যার ফলে তাঁরা এলাকা ছেড়ে কলকাতায় আসতে পারছেন না। কর্মীদের সামলাচ্ছেন। তবে সকলেই দলের যোগাযোগের মধ্যে রয়েছেন।’‌ কিন্তু নির্বাচনের সময় যখন করোনা সংক্রমণে অনেকে আক্রান্ত হচ্ছিলেন তখন দফা কমাতে রাজি হননি বিজেপি নেতারা। এমনকী মাস্ক ছাড়াই বড় জমায়েত করা হয়েছিল। তাহলে এখন কেন করোনা সংক্রমণের কথা বলে বৈঠক এড়িয়ে যাচ্ছেন তাঁরা?‌ উঠছে প্রশ্ন।

Source link

RELATED ARTICLES

'পরিষদীয় কাজে হস্তক্ষেপ রাজ্যপালের', ওম বিড়লাকে নালিশ বিধানসভার অধ্যক্ষের

সমস্ত রাজ্যের বিধানসভার অধ্যক্ষদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক লোকসভার স্পিকারের। Source link

এবার বেসুরো রিঙ্কু নস্কর, শহরের বুকে পদ্মফুলে কাঁটা, তুললেন একরাশ অভিযোগ

একুশের নির্বাচনে বিধায়ক হবেন বলে দলবদল করেছিলেন। তবে তিনি সিপিআইএম থেকে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। বিপুল ভোটে তিনি পরাজিত হয়েছেন। এখন ঘরে বসে সময়...

জোড়া ঘুর্ণাবর্ত ও মৌসুমী অক্ষরেখার জের, নাগাড়ে বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস

অবিরাম বৃষ্টি পড়েই চলেছে রাজ্যেজুড়ে। এতে শুধু শহরেই জলমগ্ন হয়নি, গ্রামগঞ্জেও জলে থৈ থৈ অবস্থা। এই পরিস্থিতি থেকে এখনই রেহাই মিলছে না আম...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

WTC Final: ২ বছর আগেও সাউদাম্পটনে পেয়েছিলেন বড় সাফল্য, মনে করালেন শামি

সাউদাম্পটন তাঁর কাছে খুবই লাকি। যখনই এই মাঠে বল করতে নামেন, তখনই পারফরমেন্স ভাল হয় মহম্মদ শামির। এই সাউদাম্পটনে প্রচুর ইতিহাস রয়েছে তাঁর।...

'পরিষদীয় কাজে হস্তক্ষেপ রাজ্যপালের', ওম বিড়লাকে নালিশ বিধানসভার অধ্যক্ষের

সমস্ত রাজ্যের বিধানসভার অধ্যক্ষদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক লোকসভার স্পিকারের। Source link

‘‌এখন অরবিন্দ মেনন, কৈলাস বিজয়বর্গীয় কোথায়?’‌, ফের তোপ দাগলেন তথাগত

নগরের নটি থেকে কেডিএসএ—এমন সব মন্তব্য করে একুশের নির্বাচনের পর রাজ্য বিজেপির অস্বস্তি বাড়িয়ে ছিলেন তিনি। এবার সেই ধারা অব্যাহত রেখেছেন তিনি। নির্বাচন...

WTC Final- বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই, ম্যাচ বাঁচাতে লড়তে হবে ভারতীয়দের

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালের শেষ দিনে ক্রিকেট ভক্তদের জন্য খুশির খবর। ক্রিকেট ভক্তদের মুখে হাসি ফোটালেন সূর্য দেব নিজে। না ম্যাচের শেষ দিনে...

Recent Comments